Saturday, January 22, 2022
Home > ইসলাম > রুস্তম, সোহরাব নাম রাখা গেলে রাম, লক্ষণ নামে অসুবিধে কী? – আল্লামা ফরীদ ঊদ্দীন মাসঊদ

রুস্তম, সোহরাব নাম রাখা গেলে রাম, লক্ষণ নামে অসুবিধে কী? – আল্লামা ফরীদ ঊদ্দীন মাসঊদ

Spread the love

যদি “রুস্তম ” “কায়সার” “সোহরাব” এই সব নাম ইসলামে রাখা জায়েজ হয় । তাহলে “লক্ষণ” “রাম” এসব নাম রাখা ও জায়েয হবে। হাতেম তাই নাম রাখা জায়েজ হয় তাহলে মধুসূদন নাম রাখা ও জায়েয হবে। কারণ হলো হাতেম তাঈ মুসলমান ছিলনা “সোহরাব” ,”রুস্তম” তারা ও মুসলমান ছিল না। কিন্তু রুস্তম তো ইসলামের দুশমন ছিল সে সাহাবায়ে কেরামের সাথে লড়াই করেছিল অবশেষে হেরেছিল। কিন্তু ইরানিরা যখন মুসলমান হলো তারা তাদের ঐতিহ্যকে ছাড়েনি। সেই ঐতিহ্যের ধারা বেয়ে কাল বেয়ে যেহেতু আমাদের কাছে ইসলাম এসেছে সেহেতু আমরা ও এই নাম রাখি। অথচ তাদের ব্যাপারে নিশ্চিত ভাবে জানা যায় যে তারা কাফের ছিল। কিন্তু “রাম” “লক্ষণ” তাদের ব্যাপারে এই সম্ভাবনা আছে যে তারা ঈমান ওয়ালা ছিল আবার এই সম্ভাবনা আছে যে তাদের ঈমান ছিল না। হাতেম তাই এর ছেলে ছিল হযরত আদী ইবনে হাতিম। তিনি সাহাবী ছিলেন। রাসুলের জন্মের আগেই হাতেম তাইর মৃত্যু হয়েছিল। তাহলে যদি ওইসব নাম রাখা জায়েজ হয় তাহলে আমাদের দেশেও “প্রদীপ” “কুমার” এজাতীয় নাম রাখা যাবে। আসলে সাম্প্রদায়িকতা আমাদের মেধাকে নষ্ট করে দিয়েছে। এই নামগুলো শুনলেই মনে হয় যে এগুলো হিন্দুদের একচেটিয়া সম্পদ। যদি হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু কবি ইমরুল কায়েসের মত একটা নষ্ট কবির কবিতা ও তিনি একত্রিত করতে পারেন, তাহলে আমরা কালিদাসের কবিতা পড়ালে অসুবিধা কোথায়? পাকিস্তান আন্দোলন ইসলাম ও ইসলামী মানসিকতার এত ক্ষতি করেছে যে বাগদাদের হালাকু খাঁর আক্রমণে যে ক্ষতি হয়েছিল সংস্কৃতির ক্ষেত্রে তার চেয়েও মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে এই পাকিস্তান আন্দোলনে। এরাই আমাদের কে সাম্প্রদায়িক বানিয়েছে।

শ্রুতিলিখন : আব্দুর রহমান রাশেদ

Facebook Comments