Friday, January 28, 2022
Home > নতুন বই > মেহেরজানের পেছনের গল্প বললেন সাইফুদ্দিন রাজিব

মেহেরজানের পেছনের গল্প বললেন সাইফুদ্দিন রাজিব

Spread the love

অক্ষর বিডি : এসময়ের তরুণ ঔপন্যাসিক, জনপ্রিয় লেখক সাইফুদ্দিন রাজিব তার তৃতীয় বই ও দ্বিতীয় উপন্যাস মেহেরজান-এর প্রচ্ছদ উন্মোচিত হয়েছে ৩ডিসেম্বর সন্ধা ৬টা ৮মিনিটে। প্রচ্ছদটি লেখক তার নিজ ফেসবুক একাউন্টে উন্মোচন করেন। প্রচ্ছদের সাথে লেখক বলেছেন তার বই মেহেরজানের পেছনের গল্প।

লেখক এর প্রথম গল্পগ্রন্থ “মধ্যরাতের ক্যাফেইন”  এটি প্রকাশ পায় ২০১৭ বইমেলায়। লেখক এর প্রথম উপন্যাস দ্বিতীয় বই নিঃশব্দ এ উপন্যাসটি ২০১৮ বইমেলায় পাঠকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলে।


আমরা পাঠকদের জন্য সাইফুদ্দিন রাজিবের ফেসবুক একাউন্ট থেকে হুবহু তুলে দিলাম।


হ্যাঁ, এখন সময় এসেছে বলার।
ভাবছিলাম মেহেরজান উপন্যাসের ঘোষণাটা কিভাবে দেবো। প্রচ্ছদ প্রকাশে বইয়ের গল্প সবাই বলে, আমি না হয় সে গল্প বলবো ধীরে ধীরে, আজ বলি মেহেরজান উপন্যাস প্রকাশের পেছনের গল্প। আগের দুই বইয়ের পেছনের গল্পর চেয়েও এই গল্প যে আরও সংগ্রামের। পাঠকেরও জানা উচিত, একটা পাণ্ডুলিপি বই হয়ে ওঠার পেছনেও গল্প থাকে।


         আগে বলে নিই,

  • বইয়ের নামঃ মেহেরজান
  • প্রকাশনাঃ Bhumi Prokash(ভূমিপ্রকাশ)
  • প্রকাশকঃ Zakir Hossain
  • প্রচ্ছদ চিত্রকর্মঃ Showkot Shawon.
  • প্রচ্ছদের নামলিপিঃ Himel Haque

Image may contain: 1 person, smiling, ocean, outdoor and water
সাইফুদ্দিন রাজিব

স্বীকার করতে সমস্যা নেই গত তিন বছরে আমি তিনজন প্রকাশকের সাথে কাজ করেছি। এমন ঘর বদল ভাল নাকি মন্দ জানিনা। নিজের মধ্যে দীনতা রয়েছে, মানুষ হিসাবেও পরিপূর্ণ নই। মূলত এসব কারণে বদলেছে ঘরগুলো, তাই নিজেকে শুধরাতে কাজ করছি।
এরপরেও যারা আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন তাদের সংখ্যা নেহাত কম নয়। Sayed Azad ভাই, কৃতজ্ঞ আপনার প্রতি। লেখালেখির ভেতরবাড়ি নিয়ে এত বেশি কথা কোন লেখকের সাথে বলিনি।
খুব কাছের কজনকে বলেছিলাম, নিঃশব্দ‘র প্রকাশনা থেকে এবার বই হবেনা আমার। কিছুটা বিষণ্ণ ছিলামও। আবার খুঁজতে হবে প্রকাশনী, পাশে এসে দাঁড়ালেন Shams Said ভাই। আমার ব্যপারে কয়েকজন প্রকাশকের সাথে পজিটিভ আলাপ হল এই লেখকের সাথে। নামী-দামী পরিচিত প্রকাশক সবাই, কিন্তু কোথাও যেন কি বাকি থেকে যাচ্ছিল। দ্বিধা কাটেনি, জনপ্রিয় একজন লেখক নিজেই বললেন চিন্তা করো ক্যান, আমিই দেখছি। তারাতো মেন্টরসম, আমি বরং খুঁজছিলাম আমার জন্য আরও বেষ্ট অপশন। এত দিনে আরেক প্রকাশনীর সাথে পাকাপাকি কথা বলে ফেলেছেন প্রচ্ছদশিল্পী হিমেল হক। ভদ্রলোক মাটির মানুষ, বরাবরই পাশে থাকেন। বলে রাখা ভাল, কোন পেশাদার প্রচ্ছদ শিল্পী একজন লেখকের প্রচ্ছদ নিয়ে এত এক্সপেরিমেন্ট করেন না, যতটা হিমেল ভাই আমাকে নিয়ে করেন।
আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ।
Fuad Sheikh, এর কথা না বললে অনেক কিছুই অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। আমার কাজটা করার নানা চেষ্টা করেছে। খুবই সম্মান করে ভাইটা, আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ।


সাদাত হোসাইন পরামর্শ দিলেন,
প্রকাশক বড়-ছোট পরের বিষয়, আগে শুনতে চাও তোমাকে নিয়ে তাদের প্লান কি। আমি আসলে এই জায়গায় আঁটকে গেলাম, নিঃশব্দ প্রকাশক জুয়েল ভাইয়ের প্লান ছিল, উনি কথাও রেখেছিলেন। তবে মেহেরজানের ক্ষেত্রে বিশেষ প্লান নিয়ে আলাপের সুযোগ হয়নি। এছাড়া বই প্রকাশ করবো না বলে সরেই এসেছিলাম, আমি আসলেই কৃতজ্ঞ কিছু মানুষের প্রতি যারা আমাকে মানসিক হেল্প করেছেন। সাদাত ভাই এই বিষয়ে ঘন্টার পরে ঘন্টা ফোনে সময় দিয়েছেন।


সর্বপ্রথম সোহেল নূর ভাই প্রথমে বললেন, ভূমিপ্রকাশে কথা বলেন। ওরা ভাল কাজ করছে। নিজস্ব বিপণন থাকায় এক্সট্রা এ্যাডভান্টেজ পাবেন। (শেষতক ভূমিতেই হল, কৃতজ্ঞ সোহেল ভাই)। মনে পড়ল ভূমির প্রকাশক নিজে নিঃশব্দ উপন্যাস পড়েছিলেন ও অভিব্যক্তি জানিয়েছিলেন সুতরাং এটা নিয়ে আলাপ করাই যায়। একই পরামর্শ ছিল Mahbubul Islam ভাইয়ের থেকেও। ভাইয়া ভূমি পাণ্ডুলিপি সিলেক্ট করলো কিনা এসব নিয়ে প্রায়ই জিজ্ঞেস করতেন। ইতিমধ্যে জাকির ভাই পাণ্ডুলিপি পড়া শেষ করেছেন, আগেই জানিয়েছিলেন, পাণ্ডুলিপি পছন্দ হলেই তিনি আলোচনা করবেন। অবশেষে পরিচ্ছেদ ধরে ধরে নানা বিষয় নিয়ে আমার সাথে আলোচনা শুরু করেছেন।
একজন প্রকাশক যখন পাঠক হন আর সেভাবেই লেখকের সাথে গল্পকে রিলেট করে কথা হয় তাহলে তার থেকে ভাল আর কি! আমার অনুপ্রেরণা ছিল এখানেই। বিষয়টা নিঃশব্দর মত পজিটিভভাবে এগোচ্ছিল।


ফিরছি সাদাত ভাইয়ের কথায়, জাকির ভাইয়ের বিষয়ে খুবই পজিটিভ বলেও আবার একই কথা। প্লান…কি আগে শোনো ! এবার আমি ভূমি প্রকাশক জাকির ভাইয়ের থেকে শুনতে চাইলাম আমাকে ঘিরে তার প্লান কি কি হতে পারে। সাকূল্যে জাকির ভাইয়ের প্যাকেজ আমার কাছে দূর্দান্ত লেগেছিল। শুরুতে কথাও রেখেছেন তিনি, হিমেল হক বলেছিলেন প্রচ্ছদ হবে পেইন্টিং দিয়ে, জাকির ভাই সেটাই করালেন। আমি আশাবাদী, বাকি সবগুলো হবে ইনশাআল্লাহ্‌।


আমি দেশে থাকি না, নানারকম সীমাবদ্ধতা রয়েছে আমার। অনেককে অনেক রকম কথা দিয়েও রাখতে পারিনি, আমি ক্ষমাপ্রার্থী। কোনদিন যদি সত্যিই লেখক হয়ে উঠি আমি সবার সাথেই দেখা করবো। অসম্পূর্ণ মানুষটাকে ভুল না বুঝে প্লিজ দোয়া করবেন।

 

Facebook Comments