Sunday, January 16, 2022
Home > বই আলোচনা > বুকরিভিউ “দখল”

বুকরিভিউ “দখল”

Spread the love

বইয়ের নাম: দখল
লেখক: লতিফুল ইসলাম শিবলী
প্রকাশনা: নালন্দা
রিভিউ : তকিব তৌফিক
প্রচ্ছদ: মো: হাসিব উজ্জামান

“শহরের ভেতর এক গোপন শহর দখলের লড়াই”

শহরের নাম ঢাকা। এই চিরচেনা ঢাকার অলিতে গলিতে সুপ্ত থাকা অচেনা জগতের রোজকার লড়াই নিয়েই দখল। যে জগতে ভালোবাসা বলে কোনো শব্দের মূল্যায়ন হয়না সেই জগতেই ভালবাসা ঢুকে পরে। আর চেনা শান্তজল ঘোলা করতেও যেন ভালবাসা’ই দায়ী। অশান্তকে শান্ত করে আর শান্তকে করে তুলে অশান্ত। দুইয়ের এই ব্যতিক্রমধর্মী পরিবর্তনে শুরু হয় গোপন যুদ্ধ। এই যুদ্ধ ছড়িয়ে পরে শহরের আড়ালে থাকা আরেকটা গোপন শহরের আনাচেকানাচে। চলতে থাকে হৃদয় দখলের মাতাল যুদ্ধ।

কবি অনিন্দ্য আকাশ কবিতা লেখে জেনিফারকে কেন্দ্র করে। আর জেনিফার কবির কবিতায় মুগ্ধ। যে মুগ্ধতায় কোনো রকমের কৃত্রিমতা নেই। থাকতে পারেনা।
কবি অনিন্দ্য আকাশ তার কবিতা জেনিফারকে মুগ্ধ করেছিল ঠিকই, কিন্তু নিজের করে পাবার যে আকাঙ্ক্ষা ছিল তার জন্য কি জেনিফার হৃদয় সে জয় করতে পেরেছিল?

ঢাকার অন্ধকার জগতের অন্যতম আতঙ্ক হল জাহাঙ্গীর। প্রয়োজন ফুরালে সরকারীদল তাকে এড়িয়ে যায়। জাহাঙ্গীর ঢাকা শহরে রাজ করত সরকারীদলের ছায়া পেয়েছিল বলে। কিন্তু সে ছায়া সরে গেছে। ছায়া সরে যেতেই প্রশাসন মরিয়া হয়ে উঠেছে জাহাঙ্গীরকে ধরতে। কিন্তু পারেনি। সে লুকিয়ে ছিল প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে।
তবে ফাঁকি দিতে পারেনি ডেভিডকে। কোকের সাথে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে জাহাঙ্গীরকে অচেতন করে ধরা হয়েছে।

বনখোরিয়া হল শহীদ চেয়ারম্যান -এর এলাকা। সেখান থেকে কিছুটা দূরে জাহাঙ্গীরকে নিয়ে আসা হয় জীবিত অবস্থায় গর্তে পুতে দেবে বলে। এটাই আন্ডারওয়ার্ল্ড এর নিয়ম। এই নিয়ম অতীতে কেউ ভঙ্গ করেনি। এমন কি ক্ষমতা থাকাকালীন সময়ে জাহাঙ্গীরও এই নিয়ম ভঙ্গ করেনি। কিন্তু আজ! আজ তার মনে হল নিয়মের পরিবর্তন হোক। তাই সে বিভিন্ন ভাবে ডেভিডকে উত্তেজিত করবার চেষ্টা করছে। যাতে ডেভিড উত্তেজিত হয়ে বন্দুকের ট্রিগার চেপে দেয় আর মৃত্যুওটা যেন সহজে হয়। কিন্তু ডেভিড উত্তেজিত হল না। সে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করেছে। কিছুতেই নিয়মের ব্যতিক্রম হতে দেয়া যায়না।

কবি ও জেনিফা ঝোপের আড়ালে ডেভিড বাহিনীর কর্মকাণ্ড দেখছে। এসব দেখে কবি চেপে গেলেও জেনি নিজেকে আর আড়াল করল না। সরাসরি প্রতিবাদ করতে মুখোমুখি হল ডেভিডের। মুখোমুখি হবার আগে কবি অনিন্দ্য আকাশের উদ্দেশ্য বলে,’ তাহলে কবিতায় এসব লেখ কেন?’

“বন্ধু তোমার বেঁচে থাকার দাবিতে
আমার বুক হবে প্রাচীরের মতো
প্রতিবন্ধক
ঘাতকের লক্ষ বুলেট প্রতিহত হবে
এই বুকে…”

জেনিফা আন্ডারওয়ার্ল্ড এর পুরোনো নিয়মটা ভেঙ্গে দিল তার বুদ্ধিমত্তা, সাহস আর ভালবাসা দিয়ে।

কিন্তু কবি অনিদ্য আকাশ যখন রিসোর্টের রেস্টুরেন্ট এ জাহাঙ্গীরের মুখোমুখি হয়, তখন সে দাবি করে জেনি ডেভিড এর হাত থেকে জাহাঙ্গীরকে বাঁচায়নিনি, বাঁচিয়েছে তার কবিতা। বাঁচিয়েছে সে।

পাঠক হিসেবে মতামত:
শুরুতেই বলতে হয় গীতিকবি ও কথাসাহিত্যিক লতিফুল ইসলাম শিবলী (Latiful Islam Shibli) বরাবরই একজন সার্থক লেখক। তার সৃষ্টি “দখল” পাঠক সমাজকে নি:সন্দেহ দখল করে নেবার যোগ্যতা রাখে। লেখক ‘দখল’-এ বলেছেন শহরের ভেতর আরেক শহরের কথা, বলেছেন অন্ধকার জগতে রাজ করা কিছু মানুষের কথা যারা রাষ্ট্রের মতো নাগরিকদের উপর ক্ষমতা আর গোপন নিয়ন্ত্রণ চালায়। সেখানে চলে পালাবদল। সেই অন্ধকার জগতে যুদ্ধ কখনো শেষ হয়না। চলতেই থাকে।

শেষকথা : ‘দখল’ পাঠে পাঠকের মন লেখকের প্রতি এবং প্রাণবন্ত ভালবাসা দখলে যাবে।

রিভিউ টি হবহু বইয়ের গ্রুপ  গ্রন্থ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নেয়া।

আপনিও যোগদিনগ্রন্থ বিশ্ববিদ্যালয়ে  ।

Facebook Comments