Monday, January 17, 2022
Home > ফিচার > আজ (শুক্রবার) বাজারে এল বিশ্বের প্রথম “ফাইভ–জি” ফোন!

আজ (শুক্রবার) বাজারে এল বিশ্বের প্রথম “ফাইভ–জি” ফোন!

Spread the love

আজ শুক্রবার ইলেকট্রনিকস সামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং দক্ষিণ কোরিয়ায় বিশ্বের প্রথম ফাইভ–জি প্রযুক্তি সমর্থিত মোবাইল উন্মোচন করেছে। গ্যালাক্সি এস১০ ৫জি। এটিই বিশ্বের প্রথম মোবাইল, যাতে বিল্ট ইন ফাইভ–জি প্রযুক্তি রয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়া এমন সময় এ প্রযুক্তি উদ্বোধন করেছে যখন চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের মতো দেশগুলো এ প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা ও পরীক্ষা চালাচ্ছে। প্রযুক্তির এ যাত্রায় সবাইকে পেছনে ফেলেছে দেশটি।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, গত বুধবার বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে বাণিজ্যিকভাবে ফাইভ–জি প্রযুক্তি সেবা সরবরাহ শুরু করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। দেশটিতে তিনটি কোম্পানি ব্যবহারকারীদের এত দ্রুতগতির ইন্টারনেট–সেবা দিচ্ছে যে পুরো একটি সিনেমা ডাউনলোড করতে এক সেকেন্ডেরও কম সময় লাগছে!

অবশ্য দক্ষিণ কোরিয়ায় চালুর কয়েক ঘণ্টা পরই যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বড় টেলিকম প্রতিষ্ঠান ভেরাইজন শিকাগোসহ দুটি শহরে বাণিজ্যিকভাবে ফাইভ–জি সেবা দেওয়া শুরু করে। এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে ১২টি শহরে বাছাইকৃত কিছু ব্যবহারকারীদের জন্য ফাইভ–জি সেবা উন্মুক্ত করেছিল ভেরাইজনের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানি এটিঅ্যান্ডটি।

ফাইভ–জি প্রযুক্তি সমর্থন করা এই ফোনের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটি (কম্পিউটার প্রযুক্তির মাধ্যমে দেখা, শোনা, ছোঁয়া ও ঘ্রাণ নেওয়ার মতো সংবেদনশীল অভিজ্ঞতা) ডিসপ্লে ও ইন্টারনেটের দ্রুতগতি। বিশেষ করে সরাসরি সম্প্রচারিত খেলা দেখা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে নতুন এই ফোনের কার্যকারিতা নিয়ে ব্যাপক উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন ব্যবহারকারীরা।

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় ফাইভ–জি আসার পর কিছুটা দুশ্চিন্তায় পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। চীননিয়ন্ত্রিত টেলিকম কোম্পানি হুয়াওয়ের ফাইভ–জি সলিউশনকে বর্জন করার জন্য বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর ওপর চাপ প্রয়োগ করছে দেশটি। অবশ্য দক্ষিণ কোরিয়ায় যে তিনটি কোম্পানি ফাইভ–জি সেবা দেওয়া শুরু করেছে, তাদের মধ্যে দুটি কোম্পানি তাদের ফাইভ–জি নেটওয়ার্কে হুয়াওয়ের প্রযুক্তি ব্যবহার করে না। কিন্তু এলজি ইউপ্লাস কোম্পানিটি তাদের ফাইভ–জি নেটওয়ার্কে হুয়াওয়ের প্রযুক্তি ব্যবহার করে থাকে।

 

অক্ষর/মিজু

Facebook Comments