Monday, January 17, 2022
Home > স্বাস্থ্য ও সুস্থতা > “মা” হওয়ার সঠিক সময় কখন

“মা” হওয়ার সঠিক সময় কখন

Spread the love
অক্ষরঃ মানুষের জীবন একটা পর্যায়ে গিয়ে সন্তান ছাড়া অর্থহীন মনে হয়। বিজ্ঞানীরা বলছেন, বর্তমানে পরিবেশ দূষণ, খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাত্রার মান পরিবর্তনসহ বেশ কিছু কারণে নিঃসন্তান দম্পতির সংখ্যা বাড়ছে। মাতৃত্বজনিত বেশ কিছু কার্যকরী টিপস নিয়ে এবারের আয়োজন।

যারা দেরিতে মা হতে চান:

    ক. ৪০ বছরের বেশি বয়স হলে আপনার গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে মাত্র ৫ ভাগ।
খ. ৪০ বছরের বেশি বয়স্ক নারীদের প্রতি পাঁচজনের ভেতর মাত্র একজনের স্বাভাবিকভাবে মা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
গ. ৪০-৪৪ বছরের ভেতরে নারীদের গর্ভপাতের সম্ভাবনা থাকে ৩৪ ভাগ।
ঘ. তবে ৪০ বছরের নিচে যারা ৬ মাস ধরে চেষ্টা করেও মা হতে পারছেন না তারা ফার্টিলিটি এক্সপার্ট দেখালে ফল পেতে    পারেন।

পরিবর্তন ডটকমের মুখোমুখি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গাইনী বিভাগের অধ্যাপক ডা. ফিরোজা বেগম।

বয়সকালে মা হওয়াতে সমস্যা কোথায়?
বেশি বয়সে সন্তান হলে মা এবং সন্তান উভয়েরই সমস্যা হতে পারে। সাধারণত ৩৫ বছরের বেশি বয়সে সন্তান জন্ম দেয়াটাই বিপদজনক। এতে করে শিশু নানা প্রকারের শারীরিক সমস্যা নিয়ে জন্মগ্রহণ করতে পারে। আর মায়ের ক্ষেত্রে, তার ডায়াবেটিকস হয়ে যেতে পারে। ব্লাড প্রেশার বেড়ে যেতে পারে। আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে সময়ের আগেও পানি ভেঙে যেতে পারে। এতে করে ব্লিডিং হওয়ার আশংকা থেকে যায়।

দীর্ঘদিন জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহার করলে মা হওয়ার সমস্যা কোথায়?
জন্মনিয়ন্ত্রণের অনেক পদ্ধতি রয়েছে। কেউ কেউ জন্মনিয়ন্ত্রণ করার জন্য পিল খেয়ে থাকেন। আবার কেউবা কনডম ব্যবহার করেন। জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলগুলো সাধারণত একধরনের সিনথেটিক হরমোনের মাধ্যমে কাজ করে। তাই কেউ দীর্ঘদিন পিল সেবন করলে একটা আস্তর পড়ে যেতে পারে যা পিল নেয়া বন্ধ করলেও সন্তান জন্ম দিতে অসহযোগিতা করতে পারে। তবে কনডম ব্যবহারের ফলে এ আশংকা নেই বললেই চলে।

কত বছর বয়স পর্যন্ত মেয়েরা স্বাভাবিকভাবে সন্তান ধারণের ক্ষমতা রাখেন?
প্রথম সন্তান নেয়ার জন্য মেয়েদের ২৫ বছর উপযুক্ত সময়। আর ৩৫ বছর বয়সের পরে সন্তান না নেয়াটাই ভালো। সাধারণত ৩৫ বছর বয়স পর্যন্ত ঝুঁকিহীন হয়ে সন্তান জন্ম দেয়া যায়।

Facebook Comments