Wednesday, January 19, 2022
Home > বই আলোচনা > বুকরিভিউ “অরক্ষণীয়া”

বুকরিভিউ “অরক্ষণীয়া”

Spread the love

বইঃ অরক্ষণীয়া

লেখকঃ শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

রিভিউঃ তানিয়া আক্তার

প্রথম প্রকাশঃ নভেম্বার ১৯১৬

দরিদ্র প্রিয়নাথের একমাত্র কুশ্রি কন্যা ক্ষেনদা কে উপলক্ষ্য করেই মূলত এগিয়ে গেছে গল্প। বিধবা জেঠাইমার বোনপো’ অতুল এর সাথে শ্রদ্ধ ভালোবাসা, অতিশয় দরিদ্রতা এবং শ্যামলা গাত্রবর্ণের জন্য পাত্র পক্ষের নজরে না পড়া।

উত্তরোত্তর ক্ষেনদা বয়স বেড়ে যাবার কারণে মা দুর্গামণির কন্যার বিয়ে নিয়ে আর ভাবনার অন্ত রইলো না।

অতুল কে নিত্যান্ত আপনার জ্ঞান করে ক্ষেনদার পায়ে পড়ে আশ্রয় চাইবার কারণেই হোক কিংবা ভালোবাসা অথবা করুণা কারপণেই হোক ক্ষেনদার পিতার মৃত্যুকালে অতুল এর প্রতিজ্ঞায় দুর্গামণি কিছুটা আশ্বস্ত হয়েছিলেন।

ক্ষেনদার পিতার মৃত্যু, পারিবারিক কলহ বৃদ্ধি, ক্ষেনদার শ্রীহীনতা এবং দরিদ্রতার কারণে অবশেষে হরিপালে নিজের মামার কাছেও নির্যাতনের স্বীকার হয়েছিলেন মা মেয়ে। অবশেষে ক্ষেনদা এবং তার মা দুর্গামণি আবার বাপের ভিটায় এসে অবহেলিত হবার নিদারুণ যন্ত্রণা সহ্য করার মাধ্যমে নিজেকে পুরো উপন্যাস জুড়ে একজন সহিষ্ণু কন্যা হিসেবে উপস্থাপন করেছেন ক্ষেনদা।

অপর দিকে অতুল তার ‘ক্ষেনদার ভার নেবার’ প্রতিজ্ঞা ভুলে মাসিমার আদেশ অনুসারে ছোটবৌ এর রূপসী কন্যা মাধুরির সঙ্গে বিয়ের সমস্ত পাকা করে। দুর্গামণি তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করেছিলো কিন্তু সকলের তিরস্কারে তার প্রতিবাদের জোর রইলো না। উপরন্তু ছোটবৌ এর কন্যা সমেত কলকাতা চলে যাওয়া এবং দুর্গামণির মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ও অতুল এর সুমতি আসেনি।

আমার পড়া অন্যতম সেরা উপন্যাস, প্রেম, পারিবারিক কলহের অপূর্ব সংযোজন এর মাধ্যমে অত্যন্ত স্বার্থক একটি উপন্যাস!

নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত পরিবার, সামাজিক অবস্থা, মানবিক জীবনবোধ, দুঃখ বোধ, পারিবারিক কলহ ফুটিয়ে তুলতে পারার অপূর্ব দৃষ্টান্ত অরক্ষণীয়া।

রিভিউ টি বইয়ের গ্রুপ  গ্রন্থ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নেয়া।

আপনিও যোগদিনগ্রন্থ বিশ্ববিদ্যালয়ে  ।

Facebook Comments