Monday, January 17, 2022
Home > উপন্যাস > ধারাবাহিক উপন্যাস “ধুপছায়া-১” ।। কাউসার মাহমুদ

ধারাবাহিক উপন্যাস “ধুপছায়া-১” ।। কাউসার মাহমুদ

Spread the love

(প্রথম পর্ব)
এমনিতেই ট্রেনে উঠলে মাথা ঝিমঝিম করে অলকের।চোখ বন্ধ করে থাকতে হয়।কি অদ্ভুত!  ট্রেন জার্নিকে কতভাবেই না উপভোগ করে মানুষ।জানালার ধারে সিট নেয়ার জন্যে কত দহরম মহরম।অথচ অলক তীব্র কষ্ট অনুভব করছে এখন।তার উপর বগির শুরুতে বাথরুম। সেখান থেকে পেশাবের উৎকট গন্ধ বিপন্ন করে তুলেছে অলককে। ছেপ ফেলতে গিয়ে বাতাসে নিজের গালেয় থুথু লেগে গেলো। ইস! কী ভীষন লজ্জা।কেউ দেখে ফেলেনি তো! এদিক ওদিক তাকাচ্ছে অলক। না  কেউ দেখেনি। বসুন্ধরা ফেসিয়াল পকেট টিস্যু দিয়ে গালটা মুছে ফেললো সে। তারপরেও কেমন যেনো অস্বস্তি হচ্ছে।ছেপ ছেপ দুর্গন্ধ আসছে গাল থেকে।বেসিংে গিয়ে মুখটা ধুতেই হবে।

মুখ ধুয়ে দরজায় দাড়িয়ে একটা সিগারেট ধরালো অলক। কয়েক টান দিতেই বাতাসের ঝাপটায় উড়ে গেলো নয় টাকা দিয়ে কেনা জন প্লেয়ার সাইন আটানো গোল্ডে লীফ। সচারচর সে সিগারেট খায়না।প্রফেশনাল সিগারেট খোর ও  নয়।ওর এক বন্ধু  আছে নিলয় পুরান ঢাকায় থাকে। দুপুরে ভাত খাওয়ার পর সিগারেট না খেলে কুওা পাগল হয়ে যায়।
মাথা ঝিমঝিমানি কমানোর জন্য মাঝে মাঝে সিগারেট খায় অলক। সিগারেট নির্বাচনে গোল্ডলীফকে সে নির্বাচন করেছে।গোল্ডলীফ খেলেও মাথা কেমন যেনো ঝিমঝিম করে।তাই বিষে বিষাক্ষয়।

ট্রেনে ওঠার পর থেকেই একটা মেয়ে কেমন যেনো আড় চোখে তাকাচ্ছে তার দিকে।এখন তো সে রীতিমতো দু’পাটি শুভ্র দন্ত বের করে হাসছে। পৌঢ় বয়সের একজন লোক মেয়েটার পাশে বসা। সম্ভবত ওর বাবাই হবে।কি অবস্হারে বাবা।বাবাকে পাশে বসিয়ে একটা ছেলেকে টিচ করছে মেয়েটা।লজ্জা ভয় কিছুই করছেনা! অলক,প্রথমে ভেবেছিলো মেয়েটাকে জিজ্ঞেস করবে, অমন মুচকি মেরে হাসছেন কেনো?
এখন সিদ্ধান্ত পাল্টেছে সে। নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখাকেই মন্গলজনক মনে হচ্ছে তার।

চোখ বন্ধ করে ঘুমানোর চেষ্টা করছে অলক।ঝিমঝিমানী শুরু হয়ে গেছে।তাতেও সমস্যা হতো না।সমস্যা হচ্ছে চোখ বন্ধ করে রাখতে পারছেনা অলক।বন্ধ করতেই মেয়েটির মুখ সামনে চলে আসছে।কি রকম!আশ্চর্য লাগছে নিজেকে।আগে তে কখনও ওর এমন হয়নি। প্রেমের প্রতি তার কোনরকম ইন্টারেস্ট আজ অবধি সে অনুভব করেনি।
অলক আড় চোখে একবার তাকালো মেয়েটার দিকে।অদ্ভুত তো! মেয়েটা এখনো তার দিকে মিটিমটি হাসছে।সে কি এতক্ষন আমার দিকেই তাকিয়ে ছিলো?অলক বুঝতে পারছেনা এ মুহুর্তে তার কি করা উচিৎ।সেও  কি তার দিকে তাকিয়ে ভদ্রতার হাসি হাসবে।না মুখ ফিরিয়ে নেবে। কৃএিম একটা হাসির রেখা মুখে টেনে সোজা মেয়েটার চোখে চোখ রাখলো অলক। চোখের ভাষা পড়তে চাইছে সে। কি অসম্ভব সুন্দর মায়াধরা দুটি চোখ। কাজল কালো চোখর মণিতে আটকে রইলো অলক।

Facebook Comments