Saturday, January 22, 2022
Home > ফিচার > “ডুব” মুভি রিভিউ ।। রেদওয়ান জ্যোতি

“ডুব” মুভি রিভিউ ।। রেদওয়ান জ্যোতি

Spread the love

কৃষ্ণ হয়ে যমুনায় যাই নি। গিয়েছিলাম ব্লকবাস্টারে মুভি দেখতে।
প্রচুর আলোচিত ও সমালোচিত ছবি “ডুব ” দেখলাম প্রিমিয়ার শোতে ফারুকী সাহেবের কারিশমা দেখার জন্য।
আসলেই এটা হুমায়ূনআহমেদের বায়োপিক নয়।
বলা উচিৎ, হুমায়ুন আহমেদের ব্যক্তিগত জীবনীর ছায়া অবলম্বনে অথবা অনুপ্রাণিত হয়ে তৈরি করা সিনেমা।
আর হুমায়ূন আহমেদ হচ্ছেন এমন এক ব্যক্তি,যার নাম নিলেই বেশ আলোচিত আর সমালোচিত হওয়া যায়।
আর শাওন ম্যাডাম তো আছেনই ‘আমার স্বামী, আমার স্বামী’ করে সারাক্ষণ তসবি জপার জন্য।
দেখলাম ছবিতে ‘আইতাছি-যাইতাছি’-এর সরাসরি ব্যবহার।
আলাওল রাজসভায় বাংলা চর্চা করতেন।
আর আমাদের মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী স্যার এতদিন নাটকে চর্চা করতেন আর এখন সিনেমায় ‘আইতাছি-যাইতাছি’-এর চর্চা করেন।
আঞ্চলিকতা আলাদা জিনিস। কিন্তু উনি প্রমিত ভাষার যা ব্যবহার খোদ রাজধানীতে দেখালেন, অসাধারণ (!)।
রোকেয়া প্রাচী’র অভিনয়টা সাবেরী আলমের মত খুব ভাল করতে পারতেন।
তিশার কান্না দৃশ্যগুলোর হোমওয়ার্ক ছিল না মনে হয়।
যে তিশার অভিনয় দেখেছি, এই অভিনয় তার সাথে মেলে না।
পার্ণো মিত্রই মনে হল ঠিকঠাক অভিনয় করেছেন। অর্থাৎ তাঁর কাজের প্রতি ঠিকঠাক পেশাদারিত্ব ছিল।
ইরফান খান বেশ গুণী অভিনেতা। যেহেতু তিনি হলিউড-বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা, তাই হয়ত এক টেকেই পরিচালক ওকে করেছেন। আবার এই ছবির অংশবিশেষ প্রযোজকও তিনি।
জঘন্য বাংলা উচ্চারণ!
ভাল কাউকে দিয়ে ডাবিং করান উচিৎ ছিল।
আহির নামে পর্দার ছেলেটির অভিনয় ভাল লেগেছে।
ছোট ছোট চরিত্রে রূপদানকারী অভিনেতাদের অভিনয় দায়সারা গোছের ছিল।
ভালো লেগেছে “আহারে জীবন” গানটির সুমি ও চিরকুটের পরিবেশনা।
ক্যামেরার কাজগুলো ভাল লেগেছে। আবহ সংগীত মাঝে মাঝে খাপছাড়া মনে হয়েছে।
ছবিটা আসলেই যতটা আশা করেছিলাম তার পঞ্চাশ ভাগ চাহিদাও পূরণ করেনি আমার।
ট্রিজার বা ট্রিলারটা যতটা আকর্ষণীয় করা হয়েছে, সিনেমা সে তুলনায় কিছুই নয়।
এই পরিচালক-এর আরও ছবি দেখেছি। তার ধারে কাছেও নয় এটা।
হতে পারে পরিচালক অনেক বিখ্যাত।নাম কামিয়েছেন। জজনগণ তাই সোনামুখ করে খাবে।
কিন্তু বুঝলাম না পরিচালক “হুমায়ূন আহমেদ”কে নিয়ে এই তামাশাটা মিডিয়ায় ছড়ালেন কেন?
আমি এই ছবির আইএমবি রেটিং দেব না।
গল্প চুরি করা। হুমায়ূন আহমেদের ব্যক্তিগত জীবনের ছায়া অবলম্বনে বললেও হত। তাও বলা হয় নি।
যেহেতু দর্শক হয়ে মুভি রিভিউ লিখছি একটা রেটিং তো দিতেই হয়।

মুভির কাহিনীঃ রেটিংয়ের অযোগ্য (কারণ স্বীকারোক্তির অভাব)
মুভি মেকিংঃ৭/১০।

Facebook Comments