Wednesday, January 19, 2022
Home > আমাদের কথা > কাণ্ডজ্ঞান

কাণ্ডজ্ঞান

Spread the love

কাজী লীনা: আচ্ছা পাঠক, একটু সময় নিয়ে ভাবুন তো, আপনি যখন কোনো অনুষ্ঠান উপভোগ করতে যান তখন সবচেয়ে বিরক্তিকর বিষয়টি কী মনে হয় আপনার কাছে।ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার আয়নায় আমার বিরক্তির প্রতিবিম্ব দেখে একটা দীর্ঘশ্বাস এসে ভারী করে যায় বাতাস।একঝাঁক আলোকচিত্রীর জন্য আপনি বেঁকেচুরে গিয়ে শরীরের রক্তচলাচল বৃদ্ধি করেন, সে হিসেবে এর একটা উপযোগিতা আছে বৈকি! কিন্তু যে অসীম বিরক্তি অন্যকে ছেয়ে ফেলে তার বেলা? প্রত্যেকটি অনুষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায় আপনার মুঠোফোন বা ক্যামেরা ঝলসে উঠছে বারবার। এই ঝলসানো মুঠোফোন দেখতে দেখতে অনুষ্ঠান উপভোগকারীরা রীতিমত কয়লা হয়ে যান আর পাহাড়সম বিরক্তি নিয়ে অসহায়ের মত ঘরের দিকে পা বাড়ান। বিষয়ট যদি এমন হয় যে, নিজস্ব উপভোগের চেয়ে, সমাজকে দেখানোই আপনার মূল উদ্দেশ্য হয়ে যাচ্ছে তবে দয়া করে এসব স্থানে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কারণ যারা আনন্দঘন উদযাপন ভালোবাসে তাদের কষ্ট হয়। আপনার ক্রমাগত আঁকাবাঁকা পোজ দেখে তাদের বিরক্তির উদ্রেক হওয়াই স্বাভাবিক। আপনার ফেইসবুক ওয়ালে আপনি যদি স্থিরচিত্র বা অস্থিরচিত্র দিয়ে প্লাবিত করেন তাহলেও অনিচ্ছুকদের পালানোর পথ আছে। কিন্তু আপনি যদি সামনের কাননকুসুম আড়াল করে আপনাকে দেখতে বাধ্য করেন তাহলে অভাগাদের আর যাওয়ার জায়গা থাকবে না! আর প্রত্যকটি অনুষ্ঠানের নির্দিষ্ট একজন আলোকচিত্রী থাকা উচিত বলে মনে হয় আমাদের যিনি দর্শকদের বিরক্তি উৎপাদন করা ছাড়াই স্থিরচিত্র গ্রহণ করবেন এবং আগ্রহীরা তার কাছে প্রয়োজন অনুযায়ী সংগ্রহ করে নেবেন। তাহলে উপভোগটা যথার্থতা পাবে। আর অনুষ্ঠান শেষে ছবি তোলার জন্য ভক্তদের কিছু সময় দেয়া উচিত যাতে তারা মনোবাসনা পূরণ করতে পারেন। সময়কে বন্দী করতে চেয়ে শুধু ক্যামেরার উপর ভরসা না করে নিজের চোখকেও প্রাধাণ্য দেয়া উচিত, নিজস্ব অনুভবের মাধ্যমে সবটুকু আনন্দ গ্রহণ করা উচিত আর যাপিত দিবসের দীপিকায় যোগ করা উচিত দীপ্র সারল্য!

Facebook Comments