রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২
Home > উদ্যোক্তা > একটি স্বপ্নের গল্প, একটি পরিচ্ছন্ন মানুষের গল্প, একজন জেরিন রহমান-এর গল্প

একটি স্বপ্নের গল্প, একটি পরিচ্ছন্ন মানুষের গল্প, একজন জেরিন রহমান-এর গল্প

Spread the love
আজ একটি গল্প বলা হবে
একটি স্বপ্নের গল্প একটি পরিচ্ছন্ন মানুষের গল্প একজন জেরিন রহমান-এর গল্প
আমি জেরিন রহমান
বিডি ক্লিন-এর একজন গর্বিত সদস্য।
ফরিদ উদ্দিন মিলন ( বিডি ক্লিন বাংলাদেশ-এর প্রধান সমন্বয়ক)
আজ আপনাদের সাথে একটি গল্প শেয়ার করবো, একটি স্বপ্ন শেয়ার করবো।
যে স্বপ্ন আমায় 
দেখিয়েছেন ফরিদ উদ্দিন মিলন ভাইয়া ( বিডি ক্লিন বাংলাদেশ-এর প্রধান সমন্বয়ক)
যত্রতত্র ময়লা ফেলার বদ অভ্যাসটা আমারও ছিলো। আবার রাস্তার পাশ দিয়ে হাঁটার সময় ময়লার দুর্গন্ধে নাকে কাপড় চেপে ধরেও হেঁটেছি, ঘৃণাও করেছি। তবুও কখনো ভাবিনি হাতের ময়লাটা যত্রতত্র না ফেলে ডাস্টবিনে ফেলি। কিন্তু যখন বাইরের দেশগুলো দেখতাম পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন। মনে মনে আশা জাগতো, ইশ্! আমার দেশটাকে কবে যে এমন দেখবো! জেগে জেগে একটা স্বপ্নও দেখে ফেলতাম পরিচ্ছন্ন দেশের। এটা শুধু কিছু সময়ের ভাবনাই থাকতো, এর পরে কিছুই করতাম না।
একদিন একটা ফ্রেন্ড-এর সাথে টিএসসি বসে ম্যাথ করছিলাম। তখনই সবুজ টিশার্ট পড়া একটা মেয়ে এসে বলে,’আপু একটু কথা বলবো।’বললাম, ‘জ্বী, বলুন আপু।’ তারপর মেয়েটি বললো,”ঢাকা ক্লিন” নামের প্লাটফর্ম-এর কথা, যা একটি পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশের স্বপ্ন নিয়ে কাজ করছে। তারা মানুষকে সচেতন করছে যত্রতত্র ময়লা না ফেলে নির্দিষ্ট ডাস্টবিন ব্যবহার করতে। সাথে এটাও বলেছে আজকে তারা ক্যাম্পেইনে এসেছে কারণ আগামী ২০ জানুয়ারি ২০১৭ইং তাদের একটি রোড শো হবে “হোটেল সোনারগাঁ থেকে শাহবাগ মোড় পর্যন্ত'”। আমাকে জিজ্ঞেস করলো, আমি তাদের সাথে যোগ দেবো কিনা। বিষয়টা জেনে তাদের সাথে যোগ দেয়ার অনেক বে
শি আগ্রহ জাগলো। জিজ্ঞেস করলাম, ‘ কী করতে হবে।’মেয়েটি বললো, ‘বেশি কিছুনা শুধু মাত্র একটি রেজিস্ট্রেশন ফর্ম ফিলআপ করতে হবে, আর কোনো টাকা লাগবে না ফর্ম ফিলআপ এর জন্য।’
বিসমিল্লাহ্‌ পড়ে ফিলআপ করলাম ফর্ম, সময়টা ১১-১৪ জানুয়ারির মধ্যে ছিলো। ফর্মটা পূরণ করার পর থেকে এখন অব্দি একটা সুতাও মাটিতে ফেলি নি। তারপর তাদের কনফার্মেশন কল আসলো ২০ জানুয়ারি রোড শো নিয়ে। কনফার্ম করলাম অবশ্যই উপস্থিত থাকবো কারণ অনেক বেশি এক্সাইটেড ছিলাম ভালো কিছু করতে যাচ্ছি হয়তো।
২০ জানুয়ারিতে কাজ করার পর কাজ করার আগ্রহ আরো বেশি বেড়ে যায়, এতো বেশি বাড়ে যে “ঢাকা ক্লিন”-এর সাথে রেগুলার কাজে যোগদান করি ২০১৭ সালের মার্চ-এর ১ম সপ্তাহ থেকে সেদিন ইভেন্ট ছিলো রমনায় আর রিপোর্টিং প্লেস ছিলো রমনার বটতলা।
এর মাঝে “ঢাকা ক্লিন” তার বিস্তার লাভ করে। “বিডি ক্লিন” হয়েছে, ঢাকাসহ বাকি ৭টি বিভাগ ও একটি জেলার কাজ প্রতিনিয়ত চলেছে। 
এছাড়াও বাকি জেলার টিম গঠন কাজ প্রায় শেষ অনেক জেলার কাজ শুরুও হয়ে গিয়েছে। ২০১৮ সালের মধ্যে উপজেলার কাজ শুরু হবে।
২০১৭-এর জানুয়ারির ২০ তারিখ থেকে এখন অব্দি বিডি ক্লিন-এর সাথে আছি,ইনশাআল্লাহ আগেও থাকবো যতদিন না একটি পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণ করতে পারছি। অনেক কিছু শিখেছি বিডি ক্লিন থেকে, শুধু যত্রতত্র ময়লা ফেলার বদ অভ্যাস ত্যাগ নয়। বিডি ক্লিন শুধু একটি পরিচ্ছন্ন ও জীবাণুমুক্ত দেশ নয় একটি আদর্শ জাতি গঠন করতে চায়। যে জাতি তার আইনের প্রতি থাকবে সদা শ্রদ্ধাশীল, যে জাতির মধ্যে থাকবে না হিংসা, লোভ- লালসার ছোঁয়া, যে জাতি একে অপরের সহযোগিতায় এগিয়ে আসবে, এমন জাতি যে তার নাগরিক দায়িত্ব পালনে সদা তৎপর থাকবে।
এই সব কিছুর জন্য একজনের কাছে কৃতজ্ঞতা না জানালেই নয়,
 তিনি হলেন “বিডি ক্লিন”-এর স্বপ্নদাতা “ফরিদ উদ্দিন মিলন” ভাইয়া। তার জন্যই আজ আমরা এতো বড় একটি প্লাটফর্ম পেয়েছি, যার মাধ্যে আমি আমাকে দেশের সেবায় নিয়োজিত করতে পেরেছি।আমাদের শ্লোগান,”পরিচ্ছন্নতার শুরু হোক নিজের থেকে।”
Facebook Comments